টোল দাবি করে ঈদ কার্ড পাঠালেন বাড্ডায় ছাত্রলীগ নেতা।

টোল দাবি করে ঈদ কার্ড পাঠালেন বাড্ডায় ছাত্রলীগ নেতা।
Rate this post

পুলিশের শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় রয়েছে জিশান। পুলিশ জানিয়েছে, সে দুবাইতে থাকে এবং সেখান থেকেই অপরাধ চক্র চালায়। তার প্রধান সহযোগী আবুল বাশার। তিনি বাড্ডা থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

আবুল বাশার গতকাল সোমবার প্রথম আলোর সঙ্গে আলাপকালে দাবি করেন, তিনি চাঁদাবাজি ও অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত নন। তিনি বলেন, এটা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। পুলিশ অবশ্য বলছে, আবুল বাশারের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলা রয়েছে।

মেহেদী গ্রুপের প্রধান মেহেদী ওরফে কলিংস এক সময় তিতুমীর কলেজের ছাত্রলীগ নেতা ছিলেন। তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসে অপরাধী চক্র চালান। মেহেদী ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে সম্প্রতি তিনটি মামলা হয়েছে এবং এর আগেও রয়েছে।

যে ছাত্রলীগ নেতা ইমরান ঈদ কার্ড পাঠাচ্ছেন তিনি মেহেদীর প্রধান সহযোগী। অভিযোগের বিষয়ে ইমরানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি পাওয়া যায়নি।

চাঁদাবাজির উদ্দেশ্যে ঈদ কার্ড ব্যবহার প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজ মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, চাঁদাবাজির অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ব্যাপারে থানা ছাত্রলীগের সভাপতিকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

বাড্ডা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আকাশ আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, বিষয়টি তিনি দেখবেন। চাঁদাবাজির অভিযোগ প্রমাণিত হলে ইমরানকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হবে। এদিকে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রবিন, ডালিম ও মাহবুব গ্রুপের তিন নেতাও বিদেশে, মালয়েশিয়ায় থাকেন। আর এবার দৃশ্যপটে প্রবেশ করছে নতুন একটি দল চঞ্চল গ্রুপ।

source

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *